একা সব সময় হাসি খুশি ও প্রাণবন্ত থাকার উপায়।

একা সব সময় হাসি খুশি ও প্রাণবন্ত থাকার উপায়।

নাই কিরে সুখ। নাই কিরে সুখ। ধরা কি শুধু বিষাদ ময়। যতনি জ্বলিয়া কাঁদিয়া মরিতে কেবলই কি নর জনম লয়।

একটু হাসি খুশি থাকতে আমরা কত কিছুই না করার চেষ্টা করি। কিন্তু সঠিক উপায়ে তা না হওয়ায় হতাশ হয়ে পড়ি। আজকে তোমাদের সাথে আমি

  • বৈজ্ঞানিক
  • মনস্তাত্ত্বিক
  • এবং আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার করবো।

কথা দিলাম আজকের টেকনিকগুলো কেউ যদি এক টানা একমাস চালিয়ে যেতে পারে তবে বেশি নিঃসন্দেহে হাসিখুশি মানুষে পরিণত হবে।

আমি এতটা কনফিডেন্ট কেন জানো কারণ এগুলো আমার জীবনকে পাল্টে দিয়েছে। আমি একজন সুখী মানুষ হতে পেরেছি। চলো তাহলে টেকনিক গুলো শিখে নিই।

একা সব সময় হাসি খুশি ও প্রাণবন্ত থাকার টেকনিক ।­

১. বন্ধু নির্বাচন।

সবার আগে এটা জরুরি। কারণ হতাশা মার্কা বন্ধুরা তোমাকে হতাশায় করবে। তাই যদি একজন হাসিখুশি কমেডি টাইপের কোন বন্ধু পাও, তবে তার সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তোল। তাকে ফলো করার চেষ্টা করো। তুমি তোমার মতো করে বন্ধুদের হাসানোর চেষ্টা করো। দেখবে মনের অজান্তেই তুমি নিয়মিত হাসির চেষ্টা করছো। চেষ্টায় কিনা হয় একমাস পরেই বুঝতে পারবে।

২. সব কথা কানে নিবে কিন্তু মগজে নিবে না।

এটাই বুঝাতে চাচ্ছি যে কে কি বলল, না বলল তাতে তোমার কোন যায় আসে না। কারো কথায় মন খারাপ হলে তৎক্ষণাৎ অন্য কোন কাজে লেগে পড়ো। আর মনে মনে বলো আমাকে আমার মত থাকতে দাও, আমি নিজেকে নিজের মতো গুছিয়ে নিয়েছি।

তবে কেউ যদি তোমার দুর্বল পয়েন্ট নিয়ে রাগানোর চেষ্টা করে। তাহলে সামনের বত্রিশ পাটি দাঁত কেলিয়ে হাসো, দেখবে চুপ হয়ে যাবে।

৩. সপ্তাহে একদিন হাসপাতালে যাও।

অবসর সময় পেলে, কিছু সময়ের জন্য হাসপাতাল থেকে ঘুরে আসো। মানুষের দুর্বিষহ জীবন গুলো মন দিয়ে উপলব্ধি কর। ইস তুমি ওদের থেকে কত সুখী তাই না। ওই বিছানায় তুমিও যন্ত্রণায় কাতরাতে। কিন্তু দেখো তুমি বিন্দাস ক

ঘুরছো। রোগীদের সাথে কথা বলো, দেখবে তোমার মন হালকা হয়ে গেছে। নিজেকে অনেক সুখী ভাববে।

তুমি অবসর সময়ে এই স্মৃতিগুলো স্মরণ করো। দেখবে তুমি একজন সাহসী যোদ্ধা হয়েছে। যে কিনা নিজের মনকে ব্ল্যাকমেইল করে মনকে জয় করতে শিখেছে।

৪. সৃষ্টিকর্তার সাথে বন্ধুত্ব।

শুনতে অবাক লাগছে তাইনা। অবাক হওয়ার কিছু নেই। কারন এটা সম্ভব তুমি তোমার অতৃপ্ত, না পাওয়া গুলো, মন খারাপের বিষয়গুলো, অন্ধকার ঘরে বসে তোমার স্রষ্টা কে উদ্দেশ্য করে মনে মনে বলা শুরু করো বা গভীর রাতে তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ে তোমার মনের সব কথা বলো ।

এভাবে এক মাস অভ্যাস করো দেখবে তোমার বিপদে আপদে। মন খারাপের সময় তোমাকে কে যেন সান্তনা দিচ্ছে। কি বিশ্বাস হয় না তাহলে একবার করেই দেখনা।

৫. অল্পতে তৃপ্ত হও।

আচ্ছা ভাবো তো এ দুনিয়ায় তুমি এসেছো একা। আবার যাবো একা।

  • কোনটাই তুমি সৃষ্টি করনি।
  • শুধু ভোগ করতে পারো।
  • কিছু সময়ের জন্য।
  • সৃষ্টিকর্তার যা দেন তাই বোনাস।

যা পেয়েছ, যতটুকু পেয়েছো, তার জন্য সৃষ্টিকর্তাকে মন ভরে কৃতজ্ঞতা ও ভালবাসাকে জ্ঞাপন কর। আর মনে মনে বলল তুমি কতই না সুখি। আজ তুমি যেটা পেয়েছ তা অনেকের কাছেই নেই।

বিলাসিতা উচ্চবিত্তের সাথে নিজের তুলনা করবে না। এটা একরকম মরীচিকা। যা তোমাকে মদ খাইয়ে মাতাল করে রাখবে।

 ৬. মোটিভেশনাল বক্তা হও ।

তুমি নিজে যত বড় বিপদের মধ্যে থাকো না কেন। তোমার আশেপাশের বন্ধুদের মানসিকভাবে সাপোর্ট দাও। তাদের সমস্যার সমাধানের উপায় বলো। যেমন তোমার বন্ধু রিসেন্ট ব্রেকআপ করে অনেক হতাশায় ভুগছে। এক্ষেত্রে তুমি ব্রেকআপের পর করণীয় বিষয়গুলো ইন্টারনেট থেকে জেনে নিয়ে তাকে বল। এভাবে বন্ধুদের মানসিকভাবে সাপোর্ট কর, দেখবে তুমি একজন মানসিক শক্তিশালী মানুষের পরিণত হয়েছে।

তোমার বন্ধু তোমাকে অনেক ভালবাসতে শুরু করবে। তোমার মনে এমন খারাপ হতাশাগুলো ভিড় করতে পারবে না। কারন তারা জানে তুমি কি জিনিস। তুমি দুর্বল নও, বন্ধুদের সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে তোমার মস্তিস্কের অবচেতন মন সমাধান গুলো সেভ করে রাখবে। তাহলে বুঝ সমস্যা আশার আগেই সমাধান তোমার মাথায়।

 ৭. ব্যায়াম ও ঘুম।

মনোবিজ্ঞানীদের মতে নিয়মিত ব্যায়াম ও বডিবিল্ডিং শুধু তোমার স্বাস্থ্যের উন্নতি করে না। সাথে সাথে তোমার মনের কষ্টগুলো দূর করে। কারণ নিয়মিত ব্যায়াম তোমার শরীরে হরমোন গুলো ব্যালেন্স রাখে। ওয়েস্টেজ কমায়।

সঞ্জয় দত্তের মুভি দেখেছো নিশ্চয়ই। প্রথমে প্রচণ্ড হতাশা কষ্ট আর নেশায় নিজেকে ডুবিয়ে। পরবর্তীতে বডিবিল্ডিং কিন্তু তার জীবন টা পাল্টে দিয়েছে। তাই নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম করার চেষ্টা করো।

আলোচিত ৭ টেকনিকের মেইন পয়েন্ট গুলো দিয়ে স্টিকি নোট তৈরি করে দেওয়ালে লাগিয়ে রাখুন। প্রতিদিন ফলো করো দেখবে একমাস পর তুমি একজন হাসিখুশি ও প্রাণবন্ত মানুষের পরিণত হয়েছে। হতাশা তোমাকে দেখে ভয়ে লুকাবে । আর তুমি হবে তোমার জীবনে মুশকিল আহসান বাবা।

তোমার যে কোন মতামত জানাতে পারো কমেন্ট করে। আর বন্ধুদের সাথে শেয়ার করো। ভালো থেকো আবার দেখা হবে নতুন কোন টপিকে।

admin

admin

My name is Md Masudur Rahman. I’m a believer, I’m a dreamer and I’m a doer. I am well known in content creation, Presentation & Leadership skill. I can speak very well both in Bengali and English.

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।