পুশ আপ করার উপকারিতা, Benefit of push up

পুশ আপ করার উপকারিতা, Benefit of push up

বিনা খরছে পুশ আপ হতে পারে আপনার শরীর এর জন্য শ্রেষ্ট ব্যায়াম। শরীরের ওজনের ভারসাম্য দুই হাতের উপর রেখে পুরো শরীরকে উপরনিচ করার এই কাজটি একটু কষ্টকর হলেও একটু সুফল পাওয়া যায়।

যদিও push up ব্যায়ামকে শ্রেষ্ট খেতাব দেওয়ার পেছনে অনেকগুলো কারন রয়েছে us Army তে এই সেরা খেতাব দেওয়া হয় বলে প্রচলিত আছে।

আজকে আমরা জানব লাগাতার এক মাস পুশ আপ দিলে কী ঘটবে আপনার শরীরে।

পুশ আপ করার উপকারিতা, Benefit of push up

  • প্রাথমিক পর্যায়ে যদি ১০ টি পুশ আপ দিয়ে শুরু করেন তাহলে প্রথম তিনদিনের মধ্যে আপনার শরীরের ক্যালরি ঝরতে শুরু করবে। পাশাপাশি আপনার শরীরের পেশি গুলো ভাংতে শুরু করবে। এছাড়াও শরীরের বাড়তি মেদ ঝরতে শুরু করবে।
  • পুশ আপ নিয়মিত পাঁচ দিন দেওয়ার পর আপনার শরীরের স্ট্যামিনা বাড়তে শুরু করবে। সেই সাথে আপনার মানসিক শক্তি দৃঢ় হবে এবং আত্মবিশ্বাস বাড়বে।

এছাড়াও আপনার শরীরের গলা থেকে পা পজন্ত প্রতিটি মাংসপেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

  • যেহেতু পুশ আপ দিলে সারা শরীরের মাংস পেশির উপর চাপ পড়ে। তাই এটি করার তিনদিনের মধ্যে মাংস পেশির ঘনত্ব বাড়বে। ফলে আপনার শরীরের ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে।
  • পুশ আপ ১০ দিন করার পর আপনার হাত, কাধ এবং শরীরের নিচের অংশ মজবুত হতে শুরু করবে। শুধু তাই নয় পুশ আপ মাংসপেশি কে স্থিতিস্থাপক বানাবে, এবং ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করবে।
  • পুশ আপ করার ১৫ দিন পর আপনার মাংসপেশির ভিতরে থাকা ফাইভার এর উন্নতি হবে, পাশাপাশি হৃদরোগের ঝুকি ৯৬% কমে যাবে।
  • পুশ আপ করার ২০ দিনের মধ্যে,  সারা শরীরে ছড়িয়ে থাকা স্নায়ুদের আরো শক্তিশালী করে তুলবে। ফলে তার শরীরের গতিবিধি ও ওজনের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারবে।
  • আমরা যখন পুশ আপ করি তখন আমাদের শরীরের ওজন ধরে রাখতে সাহায্য করে। সেই সাথে বুক, পেট ও কাধ এর উপর ক্রমাগত চাপ পড়তে থাকে এবং শরীরের এই অংশগুলির ও উপকার হয়।

এইভাবেই শরীরের উপরিভাগের কার্যক্ষমতা ও স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধি পায়।

  • এছাড়াও পুশআপ করার ২৫ দিনের মধ্যে আপনার কোমর ব্যাথা থাকলে দূর হবে। আপনার শরীর এর গঠন শক্তিশালী ও আকর্ষনিয় হবে।
  • পুশ আপ করার তিরিশ দিনের মধ্যে আপনার শরীরের কাঠামোতে সুন্দর শেপ চলে আসবে। অথাৎ আপনার পুরো শরীরে ফিটনেস বাড়বে। আপনার হার্ডের মার্সেল শক্তিশালী হবে।
  • এভাবে ধীরে ধীরে পুশ আপ এর পরিমান বাড়াতে থাকুন। তবে পুশ আপ করার সময় খেয়াল রাখবেন, মাথা, গলা, কমর, পা যেন সোজা লাইন বরাবর থাকে। এভাবে ধীরে ধীরে শরীরকে উপর দিক থেকে নিচের দিকে নামিয়ে আনুন। কখনই তারাহুরো করে পুশআপ করা উচিত নয়।

বেস কার্যকরি পুশআপ ডায়মন্ড পুশআপ

  • এই পুশআপ টি সাধারন পুশআপ এর থেকে কার্যকরি। যার নাম হলো ডায়মন্ড পুশআপ। ধীরে ধীরে সাধারন পুশআপ দিয়ে অভ্যস্ত হয়ে গেলে ডায়মন্ড পুশআপ খুব সহজে দিতে পারবেন। এটি আপনার বুক, পেট ও কাধ এর পেশি গঠনে সাহায্যে করে।

  • প্রথমেই আপনার দুইহাতকে ডায়মন্ড আকৃতি রেখে তারপর আপনার শরীরকে উঠাতে নামাতে হবে।

বিনা খরচে এই ব্যায়ামটি আপনার যথেষ্ট শারীরিক দৃঢ়তা প্রদান করবে। তবে আর দেরি কেন আজি শুরু করে দিন একটানা কয়টি পুশআপ দিতে পারেন কমেন্টে জানিয়ে দিন।

admin

admin

My name is Md Masudur Rahman. I’m a believer, I’m a dreamer and I’m a doer. I am well known in content creation, Presentation & Leadership skill. I can speak very well both in Bengali and English.

Related post

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।