সারোগেসি কী কেন কীভাবে। ইসলাম কী বলে।

সারোগেসি কী কেন কীভাবে। ইসলাম কী বলে।

ইন্টারনেটের বহুল আলোচিত বিষয়ের মধ্যে সারোগেসি অন্যতম। আর ভারতের প্রীতি জিন্টা, শাহরুখ খান, কিংবা আমির খান সারোগেিস পদ্ধতিতে সন্তান নেওয়ার পর, এই বিষয়টি নতুন করে আলোচনায় উঠে এসেছে।

তবে অনেকেই জানেন না যে সারোগেসি আসলে কি?
কিংবা এটা নিয়ে বিভিন্ন ধর্মের বিধান কী?

তাই আজকে আমি জানাতে চলেছি

1. সারোগেসি কি?
2. সারোগেসির পুরো প্রক্রিয়া কিভাবে সম্পন্ন হয়?
3. আর সারোগেসি পদ্ধতিতে সন্তান নিতে কত টাকা খরচ হয়?
4. ইসলাম ও ভারতীয় আইনে সারোগেসি বৈধ কিনা?

স্বাগতম আপনাকে আজকের নতুন এপিসোডে।

সারোগেসি কি

সারোগেসি শব্দের একেবারে সোজা সাপটা অর্থ হল গর্ভাশয় ভাড়া। একজন নারীর গর্ভে অন্য দম্পতির সন্তান ধারণের পদ্ধতি কে সারোগেসি বলে।

আইভিএফ পদ্ধতিতে স্ত্রী ও পুরুষের ডিম্বাণু ও শুক্রাণু দেহের বাইরে নিষিদ্ধ করে। তা নারীর গর্ভাশয় প্রতিস্থাপন করা হয়। অনেক চেষ্টার পরেও যখন সন্তান লাভের আর কোন আশা থাকে না। তখনই কোনো দম্পতি সারোগেসির শরণাপন্ন হতে পারেন।

সারোগেসির পুরো প্রক্রিয়া কিভাবে সম্পন্ন হয়।

সারোগেসি প্রক্রিয়া জানার আগে জেনে নেয়া যাক এটা কত ধরনের হয়। সারোগেসি প্রধানত দুই ধরনের হয়।
যেমন
1. পার্শিয়াল সারোগেসি, এই পদ্ধতিতে সন্তান জন্মানোর ক্ষেত্রে মা কোনো ভূমিকা পালন করেন না। এই পদ্ধতিতে বাবার শুক্রাণু এবং সারোগেট মায়ের ডিম্বাণু থেকে সন্তানের জন্ম হয়। সন্তানের
2. জেস্টেশনাল সারোগেসি, এই পদ্ধতিতে মায়ের ডিম্বাণু নিয়ে ল্যাবে ভ্রুন তৈরি করা হয়। এরপর সারোগেট মায়ের জরায়ুতে প্রতিস্থাপন করা হয়। এই পদ্ধতিটি এখন বহুল প্রচলিত।
পার্শিয়াল সারোগেসি পদ্ধতিতে মহিলার ডিম্বাণু এবং গর্ভ ভাড়া নেওয়া হয়। সেক্ষেত্রে সন্তানের উপর মায়ের একটি জৈবিক অধিকার থেকে যায়।

অন্যদিকে আইভিএফে মায়ের ডিম্বাণু স্পার্ম ব্যাংক থেকে আনা অন্য পুরুষের শুক্রাণুর সঙ্গে অথবা বাবার শুক্রাণু ও ডিম্বাণু নিষিক্ত করে ভাড়া দেওয়া মহিলার গর্ভে প্রতিস্থাপন করা। যেহেতু গর্ভ ভাড়া নেওয়া মহিলার ডিম্বাণু ব্যবহার করা হয়নি সেহেতু ভূমিষ্ঠ সন্তানের উপর সেই মহিলার কোন অধিকার থাকেনা। তবে বাবা এবং মায়ের শুক্রাণু এবং ডিম্বাণু নিষিক্ত করে যে ভ্রুন তৈরি করা হয় তার পিতৃত্ব বা মাতৃত্ব নিয়ে কোনো সংশয় থাকে না।

তবে আইভিএফ পদ্ধতিতে ডিম্বাণু ও শুক্রাণু নিষিক্ত করা কে টেস্টটিউববেবী বলা হয়। আর টেস্টটিউব বেবি ভ্রুন অবস্থাতেই মাতৃগর্ভে বেড়ে ওঠে।

সারোগেসি পদ্ধতিতে সন্তান নিতে কত টাকা খরচ হয়।

ইন্ডিয়াতে একটা সারোগেট সন্তানের জন্য 10 লাখ থেকে 50 লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ হয়। বিষয়টি পুরোপুরি নির্ভর করে কোন ব্যক্তি এই পদ্ধতিতে সন্তান নিচ্ছেন। শাহরুখ খান ও আমির খান কিংবা পৃতিজিন্তার মতো তারকারা সারোগেসি পদ্ধতিতে সন্তান নিয়েছেন।

যারা প্রায় 1 থেকে 2 কোটি টাকা এই সারোগেসি পদ্ধতি জন্য ব্যয় করেছেন।

ইসলাম ও ভারতীয় আইনে সারোগেসি বৈধ কিনা।

ইসলামিক আইনে টেস্টটিউব বেবি হালাল হলেও, সারোগেসি হারাম। একইসাথে সারোগেসি পদ্ধতিতে সন্তান জন্মদান ভারতীয় আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ।

ইসলামী স্কলারদের মতে এই জাতীয় সার্বিক মাতৃত্বের অনুমতি নেই কারণ এটি জিনা এর সমতুল্য। যেহেতু সারগেট তার বৈধ স্বামী নয়। এমন ব্যক্তির নিষিক্ত ডিম বহন করে। সেহেতু এই পদ্ধতি অর্থাৎ সারোগেসি কে হারাম বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ একটি মুসলিম মাজোরিটি কান্ট্রি হওয়ায় এখানে টেস্টটিউব বেবি আইনত ভাবে বৈধ হলেও।

সারগেসি বিষয়টি এখনও আইনগত ভাবে বৈধতা পায়নি।

Related >>

হিউম্যান রিপ্রডাকটিভ সিস্টেম কীভাবে কাজ করে। সন্তান কীভাবে জম্ম নেয়। Human Reproductive system.

Fatema Akter

Fatema Akter

আসসালামু আলাইকুম, আমি ফাতেমা আক্তার, আমি বর্তমানে University তে লেখাপড়া করি, পাশাপাশি আমি tw3press এ লিখি, আমি নিজে যা জানি তা সবাইকে জানাতে বা শিখাতে ভালবাসি

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।